Monday , December 5 2022
সর্বশেষ সংবাদ:
প্রচ্ছদ / জাতীয় / রাজধানীতে বাড়ছে ডেঙ্গু, আগস্টে আরও বৃদ্ধির শঙ্কা

রাজধানীতে বাড়ছে ডেঙ্গু, আগস্টে আরও বৃদ্ধির শঙ্কা

সানি আজাদ : চলতি বছরের ১৫ই জুলাই পর্যন্ত দেশে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন এক হাজার ৬১০ জন। এর মধ্যে রাজধানীতেই এক হাজার ৪৫৬ জন। তবে, জুন মাস থেকে ঢাকায় ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ বাড়ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এখন মশার বংশ বিস্তারের সময়। তাই সামনে পরিস্থিতি আরো খারাপ হতে পারে। কীটতত্ত্ববিদ অধ্যাপক ড. কবীরুল বাশার জানান, ঈদের পর রাজধানীর বাইরের জেলাগুলোতেও ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে আগস্ট মাসে রোগীর সংখ্যা আরও অনেক বৃদ্ধি পাবে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য ঘেঁটে দেখা গেছে, এ বছরের জুনে সর্বোচ্চ ৭৩৭ জন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। আর চলতি মাসের প্রথম পনের দিনেই ভর্তি হয়েছে ৫২১ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর জানান, ডেঙ্গু রোগী সেবা নিশ্চিত করতে হাসপাতালগুলোতে সার্বক্ষণিক নজরদারি করছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তবে, ডেঙ্গু যেন না হয় সেজন্য সবাইকে সচেতন থাকার পরামর্শ দেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর। জ্বর, কাশি, শরীর ব্যথাসহ নানা উপসর্গ থাকলেও সাধারণ ঠান্ডা-জ্বর ভেবে অবহেলা করছেন অনেকে। কেবল শারীরিক অবস্থা জটিল হলেই হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন তারা। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ মতলেবুর রহমান জানান, এখন তিন ধরনের জ্বরের প্রাদুর্ভাব দেখা যাচ্ছে-সাধারণ ফ্লু জ্বর, করোনা এবং ডেঙ্গু। তাই জ্বর যেমনই হোক তা হালকাভাবে না নিয়ে

পরীক্ষা করিয়ে যথাযথ চিকিৎসা নেয়ার পরামর্শ দেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, যদি এখন কারও জ্বর হয় তবে তার অবশ্যই ডেঙ্গু এবং করোনা টেস্ট করানো উচিত। জানান, করোনার থেকেও ডেঙ্গু বেশি ভয়াবহ হতে পারে বলেও জানান সেব্রিনা ফ্লোরা। আর ডেঙ্গু রোগীর ক্ষেত্রে কিছু অতিরিক্ত সাবধানতা অবলম্বন করতে হয় বলেও উল্লেখ করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তদের চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ সেবনের পাশপাশি তরল খাবার খাওয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের। রাজধানীতে বাড়ছে ডেঙ্গুর প্রকোপ। জুন মাসে রেকর্ড রোগী ভর্তি হয়েছে হাসপাতালে। এ মাসে সেই সংখ্যা ছাড়িয়ে যাওয়ার শঙ্কা তৈরি হয়েছে। জ্বর, মাথা ও শরীর ব্যথা, বমির মতো উপসর্গ দেখা দিলে অবহেলা না করে করোনা এবং ডেঙ্গু পরীক্ষা করার পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।