Saturday , December 3 2022
সর্বশেষ সংবাদ:
প্রচ্ছদ / জাতীয় / সড়কে ঝরলো ১১ প্রাণ

সড়কে ঝরলো ১১ প্রাণ

ডেস্ক : বগুড়ার কাহালু ও শেরপুরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ৬ জন নিহত হয়েছেন। গতকাল সকাল ও শুক্রবার (১৫ জুলাই) বিকেলে এসব দুর্ঘটনা ঘটে। বগুড়ার কাহালুতে প্রাইভেটকার ও মিনিট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে বাবা- ছেলেসহ ৪ জন নিহত হয়েছেন। গতকাল সাড়ে ৮টার দিকে কাহালুর দরগাহহাট এলাকার সজল ফ্যাক্টরির সামনে বগুড়া-নওগাঁ মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- নওগাঁর ধামইরহাটের তানছের আলী (৬০), তার ছেলে টগর আলী (৩৫), মফিজ উদ্দিনের ছেলে আব্দুর রহমান (৩৫) এবং প্রাইভেটকারের চালক পত্নীতলা এলাকার মান্নুর ছেলে সুমন(৩০)। এতে শাকিল (২০) নামে আরও এক যুবক গুরুতর আহত হয়েছেন। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। কাহালু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমবার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে বগুড়ার শেরপুরে যাত্রীবাহী দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুই যাত্রী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন বাসের চালকসহ অন্তত দশ যাত্রী। গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে তাদেরকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেল সাড়ে তিনটায় শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের ঘোগা ব্রিজ এলাকায় ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় নিহতদের মধ্যে একজন পুরুষ (৩৫) ও একজন নারী (৪০) যাত্রী রয়েছেন। তবে এই সংবাদ লেখা পর্যন্ত তাদের নাম পরিচয় জানা যায়নি। শেরপুর ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের কর্মকর্তা সিদ্দিকুর রহমান জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া কালিয়াকৈর পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস মহাসড়কের ঘোগাব্রীজ এলাকায় পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা নওগাঁ ট্রাভেলস পরিবহনের আরেকটি বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই দুই বাস যাত্রী মারা যান। সেইসঙ্গে উভয় বাসের চালকসহ অন্তত দশজন আহত হন। বগুড়ার শেরপুর হাইওয়ে পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বানিউল আনাম বলেন, দুর্ঘটনা কবলিত বাস দুটি উদ্ধার করে জব্দ করা হয়েছে। এছাড়া দুর্ঘটনায় হতাহতদের নাম-পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।

সঠিকভাবে পরিচয় পাওয়ার পর এই ঘটনায় শেরপুর থানায় মামলা করা হবে। অন্যদিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে থেমে থাকা ট্রাকে বাসের ধাক্কায় ৪ জন নিহত। নিহতরা সবাই বাসের যাত্রী ছিলেন। এসময় আরও ৯ জন যাত্রী আহত হয়েছেন। গতকাল সকাল ৬টায় মির্জাপুর উপজেলার ভাতগ্রাম ইউনিয়নের দুল্যা মনসুর নামক স্থানে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। গোড়াই হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা টুটুল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, শনিবার সকালে ঢাকাগামী থেমে থাকা বালুভর্তি একটি ট্রাকের পেছনে যাত্রীবাহী বিনিময় পরিবহনের একটি বাস ধাক্কা দিলে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলে তিনজনের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় আরও ৯ যাত্রী আহত হয়েছেন। তাদের উদ্ধার করে কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সেখানে চিকিৎসাধীন আরও এক যাত্রীর মৃত হয়। তবে তাৎক্ষনিকভাবে হতাহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

ওসি আরও জানান, দুর্ঘটনার পর মহাসড়কে ঢাকার দিকে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। যানজটে আটকা পড়ে কর্মস্থলগামী মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। প্রায় দুই ঘণ্টা পর মির্জাপুর থানা পুলিশ দুর্ঘটনা কবলিত বাসটি সরিয়ে নিলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। এদিকে, রাজধানীর শাহবাগে সোনারগাঁও হোটেলের সামনে বাসের ধাক্কায় ইব্রাহিম বিশ্বাস (২৪) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। গতকাল ভোর ৪টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। শাহবাগ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহাবুদ্দিন বলেন, ভোরে ওই যুবক রিকশা করে ফার্মগেটের দিকে যাচ্ছিলেন। সোনারগাঁও হোটেলের সামনে পৌঁছালে একটি বাস পেছন থেকে রিকশাকে ধাক্কা দিলে তিনি ছিটকে পড়েন। পরে বাসটি তাকে চাপা দিয়ে চলে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত্যু ঘোষণা করেন। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ জরুরি বিভাগের মর্গে রাখা হয়েছে। ইব্রাহিমের বাড়ি বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলার বিশ্বাস বাড়ি গ্রামে। তার বাবার নাম সান্টু বিশ্বাস।